মৃ’ত্যু বেড়ে ১৬২১, আ’ক্রান্ত ছাড়াল ১ লক্ষ ২৬ হাজার

বিশ্বব্যাপী ম’হামা’রি রূপ নেয়া করো’নাভাই’রাসে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আ’ক্রা’ন্ত ও মৃ’তে’র সংখ্যা। বাংলাদেশেও প্রতিদিনই আ’ক্রা’ন্ত ও মৃ’ত্যু’র সংখ্যায় রেকর্ড ভাঙছে। দেশের গত ২৪ ঘণ্টায় করো’না ভাই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত হয়েছেন ৩৯৪৬ জন।

মোট আ’ক্রা’ন্ত ১২৬৬০৬ জন। ২৪ ঘণ্টায় মা’রা গেছে ৩৯ জন।এ নিয়ে দেশে মোট করো’না আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মা’রা গেল ১৬২১ জন।গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা টেস্ট করা হয়েছে ১৭৬৯৯ টি।আজ দুপুরে করো’না ভাই’রাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে এ তথ্য জানান সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

আরো পড়ুন:- মৃ’তের সংখ্যা বাড়ছে রংপুরে: প্রা’ণঘা’তী করো’না ভাইরাসে রংপুরে তোফাজ্জল হোসেন (৬৮) ও খালেদ হাবিব মুকুল (৫০) নামে দুজন মা’রা গেছেন। রংপুর ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতে তাঁদের মৃ’ত্যু হয়।এদিকে তোফাজ্জল হোসেন রংপুর নগরীর মাহিগঞ্জের বাসিন্দা।

করো’নাভাই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে গত ২২ জুন তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। অন্যদিকে খালেদ হাবিব মুকুল কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার সবুজপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি কুড়িগ্রাম জেলার করো’নায় আ’ক্রা’ন্ত রোগী হিসেবে প্রথম মা’রা যান।ওই দুজনের মৃ’ত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এস এম নূরুন নবী। এ নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাতজন করো’নাভাই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মা’রা গেলেন।

রংপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, করো’নাভাই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে রংপুরে মৃ’ত্যু’র সংখ্যা দাঁড়ালো ১৪ জনে। এর মধ্যে চারজনের মৃ’ত্যু হয়েছে রংপুর ডেডিকেটেড করো’না আইসোলেশন হাসপাতালে। বর্তমানে রংপুরে এই ভাই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮২৮ জনে। এদের মধ্যে হাসপাতাল ও বাড়িতে চিকিৎসাধীন থেকে ৪৪০ জন সুস্থ হয়েছেন।